Monday, December 11, 2023

প্রধানমন্ত্রী এসইজেডে শ্রীলঙ্কার আরও বিনিয়োগ চাইছেন

প্রধানমন্ত্রী এসইজেডে শ্রীলঙ্কার আরও বিনিয়োগ চাইছেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ শ্রীলঙ্কাকে বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলিতে (এসইজেড) আরও বিনিয়োগের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

শ্রীলঙ্কার নবনিযুক্ত হাইকমিশনার সুধারশন দীপাল সুরেশ সেনেভির্তনে তাঁর সরকারী বাসভবন গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এই আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ সমগ্র দেশে ১০০ টি এসইজেড উন্নয়ন করছে এবং শ্রীলঙ্কার উদ্যোক্তারাও বিদেশিদের জন্য বিদ্যমান অনুকূল নীতিমালা গ্রহণ করে এখানে বিনিয়োগ করতে পারবেন। প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব হাসান জাহিদ তুষার এই আহ্বানের পরে সংবাদকর্মীদের ব্রিফ করেন।

শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রদূত বলেছেন, তাঁর দেশ বিমান চলাচলে সহযোগিতা ও বাংলাদেশে নার্সদের প্রশিক্ষণের পাশাপাশি নৌ-পরিবহন, হাসপাতাল, পর্যটন, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে কাজ করতে এবং বিনিয়োগ করতে আগ্রহী। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের প্রশংসা করে তিনি বলেন, গত কয়েক বছরে তার দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশ অসাধারণ সাফল্য অর্জন করেছে।

শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রদূত পর্যবেক্ষণ করেন যে, আরও বিনিয়োগ ও শিল্প বাংলাদেশে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি বলেন, সমুদ্র ক্রুজ প্রবর্তনের পাশাপাশি বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সাংস্কৃতিক পর্যটন প্রসারের জন্য তার দেশ উপকূলীয় অঞ্চলে পর্যটন অবকাঠামো স্থাপন করতে চায়। রাষ্ট্রদূত কোভিড-১৯ মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং বলেন যে, তিনি বাংলাদেশের করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি সামাল দেয়া দেখে অবাক হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার সচেতনতা তৈরির চেষ্টা করছে যাতে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে লোকেরা সচেতন হতে পারে এবং এভাবেই মহামারীটি সংঘবদ্ধভাবে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়েছে।

শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রদূত এই ভ্যাকসিনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। কারণ সরকার দেশের জনসাধারণের পাশাপাশি কূটনীতিক এবং বিদেশীদেরও টিকা সরবরাহ করছে।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে অটিজমের জন্যবিশ্ব সাস্থ সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এর চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য সায়মা ওয়াজেদ হোসেনকে অভিনন্দন জানিয়ে হাইকমিশনার বলেন, অটিজম ক্ষেত্রে তাঁর কাজ প্রশংসনীয়। অটিজমের ক্ষেত্রে শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশের সাথে সহযোগিতা প্রতিষ্ঠা করতে চায়, তিনি আরও যোগ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিষয়টিকে পিতামাতারা সামাজিকভাবে লজ্জাজনক  মনে করে। ফলে তারা তাদের অটিস্টিক বাচ্চাদের বাইরে আনতে চায় না।

সরকার এই পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে পর্যাপ্ত পদক্ষেপ নিয়েছে, যদিও এটি একটি চ্যালেঞ্জিং কাজ। কারণ অনেক শিক্ষিত পরিবারও তাদের অটিস্টিক বাচ্চাদের আড়াল করার চেষ্টা করে, তিনি উল্লেখ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ” আমরা অটিস্টিক ও শারীরিক প্রতিবন্ধী মানুষ এবং তাদের শিশুদের জন্য বিশেষ বরাদ্দ এবং সহায়তা দিচ্ছি।”  শুধু তাই নয়, হিজড়া বা তৃতীয় লিঙ্গদেরকেও ভাতা দেওয়া হচ্ছে।

হাই কমিশনার সামাজিক সুরক্ষা নেট কর্মসূচী থেকে প্রান্তিক মানুষের কাছে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে অর্থকে “স্থল ভাঙ্গা” হিসাবে আদান প্রদানের উদ্যোগেরও প্রশংসা করেছেন। ছাত্র জীবনের স্মৃতি স্মরণ করে তিনি বলেন, দিল্লিতে অধ্যয়নকালে তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে সমর্থন দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশকে সমর্থন করার জন্য হাই কমিশনারকে ধন্যবাদ জানান। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মোঃ তোফাজ্জেল হোসেন মিয়া এবং প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল নাকিব আহমেদ চৌধুরী এসময় উপস্থিত ছিলেন।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest article