Monday, December 4, 2023

খুব দ্রুতই আমরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দিতে পারব-প্রধানমন্ত্রী

খুব দ্রুতই আমরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দিতে পারব-প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমরা এই ফেব্রুয়ারি মাসটা দেখব। যদি অবস্থা ভালো থাকে, তাহলে পরবর্তী সময়ে সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলার ব্যবস্থা করব, শিক্ষার্থীরা যাতে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে পারে সে ব্যবস্থাটা আমরা গ্রহণ করব।’ প্রধানমন্ত্রী শনিবার গণভবন থেকে অনলাইনে ১১ শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেন। এ সময় এসব কথা বলেন তিনি।

সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এর আগে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বোর্ড চেয়ারম্যানদের কাছ থেকে ফলাফল গ্রহণ করেন। এবার ১১ শিক্ষা বোর্ডের ১৩ লাখ ৬৫ হাজার শিক্ষার্থীর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়তে শুরু করায় ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে সরকার পরীক্ষা ছাড়াই মূল্যায়নের মাধ্যমে এইচএসসি ও সমমান শ্রেণির ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেয়।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনারা যদি স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেন তাহলে খুব দ্রুতই আমরা করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করতে পারব এবং খুব দ্রুতই আমরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দিতে পারব। আশা করছি আগামী মার্চ-এপ্রিল। মার্চ মাসটা আমরা দেখব, কেননা মার্চ মাসেই আমাদের দেশে ব্যাপক আকারে এই করোনাভাইরাস শুরু হয়েছিল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ইতোমধ্যে করোনাভাইরাসের টিকার ব্যবস্থা করেছি। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় যত ধরনের পদ্ধতি আছে, সবই আমরা প্রয়োগ করার চেষ্টা করছি। যখন করোনাভাইরাসের টিকার গবেষণা শুরু হয়েছিল, তখন থেকেই আমরা আগাম টাকা দিয়ে টিকা বুকিং দিয়েছিলাম এজন্য যে, যখনই টিকা আবিষ্কৃত হবে এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনুমোদন দেবে সাথে সাথে আমরা যেন সেটা আনার ব্যবস্থা করতে পারি। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে আমরা করোনার টিকা দেওয়া শুরু করেছি। আমি নির্দেশ দিয়েছি, আমাদের যারা শিক্ষক, স্কুল-কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা কর্মরত, তাদেরও যেন করোনাভাইরাসের টিকা দ্রুত দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২৯ মার্চ ২০২০ থেকেই ‘আমার ঘর আমার স্কুল’ কর্মসূচির সাহায্যে টেরিস্ট্রিরিয়াল (সারা দেশে দেখা যায়) সমৃদ্ধ সংসদ টিভির মাধ্যমে দৈনিক প্রায় ৪ ঘণ্টা করে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর ক্লাস নেওয়া ও প্রচার চলেছে। তিনি ফল প্রকাশে শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ জানান। শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা আরেকটু কষ্ট করেন, ছেলেমেয়েরা যেন পাঠে মনোযোগী হয়। সবার ভালোর জন্য এই ফলাফল ঘোষণা করা হলো যাতে এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের জীবনটা সুন্দর ও সফল হয়।

অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি এবং শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বক্তৃতা করেন। ফল মূল্যায়ন নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী জানান, অষ্টমের সমাপনী ও এসএসসির ফলাফলের গড় করে ২০২০ সালের এইচএসসির ফল নির্ধারণ করা হয়েছে। জেএসসি-জেডিসির ফলাফলকে ২৫ ও এসএসসির ফলকে ৭৫ শতাংশ বিবেচনায় নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের ফল দেওয়া হয়েছে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest article